1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

খেলাধুলা

অ্যাটলেটিকোর ঐতিহাসিক জয়

চলতি মৌসুমে অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদ যেন স্বপ্নের পথে ছুটে চলেছে৷ চ্যাম্পিয়নস লিগের সেমিফাইনালের ফিরতি লেগে বুধবার রাতে স্টামফোর্ড ব্রিজে চেলসিকে ১-৩ গোলে উড়িয়ে দিয়েছে তারা৷ মানে ফাইনালে মুখোমুখি হবে রেয়াল ও অ্যাটলেটিকো৷

এর মধ্য দিয়ে ৪০ বছর পর ফাইনালে পা রাখল ডিয়েগো সিমিওনের দল৷ এ অ্যাটলেটিকোকে যেন চেনাই যায় না৷ এক কথায় বলা যায় দুর্দান্ত অ্যাটলেটিকো৷ এই ম্যাচ জয়ের কারণে ২৪শে মে লিসবনের ফাইনালে দলটি মুখোমুখি হবে রেয়াল মাদ্রিদের৷ অর্থাৎ ফাইনাল হবে মাদ্রিদে-মাদ্রিদে৷

অ্যাটলেটিকোর কোচ ডিয়েগো সিমিওনে বলেছেন, ‘‘দুই দলই ভীষণ শক্তিশালী৷ তবে এত বছর পরে এই ম্যাচটা জেতা আসলেই এক অনন্য অভিজ্ঞতা৷'' অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদের মিডফিল্ডার টিয়াগো বলেন, ‘‘আমরা এমনভাবে খেলেছি যে মনে হচ্ছিল বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিশালী এবং অপ্রতিরোধ্য দল আমরা এবং আমাদের জন্য যে এই পুরস্কারটা অপেক্ষা করছিল এটা প্রত্যাশিত ছিল৷''

Champions League Chelsea FC - Atletico Madrid

পেনাল্টি থেকে গোল করছেন ডিয়েগো কস্তা

ম্যাচের শুরুতে কিন্তু জোসে মোরিনিয়ো-র দলেরই দাপট ছিল লক্ষণীয়৷ ৩৬ মিনিটেই অ্যাটলেটিকোর জালে বল জড়ান ফার্নান্দো টরেস৷ ৪৪ মিনিটে অ্যাটলেটিকোকে সমতায় ফেরান আদ্রিয়ান লোপেজ৷ ১-১ সমতা নিয়ে বিরতিতে যায় দু'দল৷ কিন্তু অ্যাওয়ে গোলে তখন এগিয়ে অ্যাটলেটিকো৷

তবে ৬০ মিনিটেই পেনাল্টি থেকে গোল করলেন অ্যাটলেটিকোর ডিয়েগো কস্টা৷ চ্যাম্পিয়নস লিগে এটি কস্টার অষ্টম গোল৷ আর ৭২ মিনিটে গোল করেন তুরান৷ দুই লেগ মিলিয়ে চূড়ান্ত স্কোরলাইন চেলসি ১:৩ অ্যাটলেটিকো৷

তবে অ্যাটলেটিকোর গোলরক্ষক কুর্তোয়া-র দুর্দান্ত পারফরম্যান্সও চেলসির পরাজয়ের একটি বড় কারণ৷ ১৯৭৪ সালের পর এই প্রথম অ্যাটলেটিকো ফাইনালে৷ অ্যাটলেটিকোকে ইউরোপের শ্রেষ্ঠত্ব এনে দিতে পারলে সিমিওনে হয়ে যাবেন ইতিহাসের অংশ৷ ২৪ মে লিসবনে দুই মহারথির ফুটবল যজ্ঞ দেখার অপেক্ষায় এখন পুরো বিশ্ব৷

এপিবি/ডিজি (এপি, এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়