1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

অসচেতনতায় হারিয়ে যাচ্ছে ভারতের জীববৈচিত্র্য

অজ্ঞতা ও অসচেতনতায় হারিয়ে যাচ্ছে পৃথিবীর জীববৈচিত্র্য৷ যদি এই প্রবণতা বন্ধ করা না যায়, তবে ২০২৫ সালের মধ্যে শতকরা ২০ থেকে ২৫ ভাগ প্রাণী ও উদ্ভিদ পৃথিবী হতে নিশ্চিহ্ন হয়ে যেতে পারে- এমনটাই আশংকা পরিবেশ বিজ্ঞানীদের৷

default

পরিবেশ বিপন্ন হওয়ায় এরকম অনেক পাখিই আজ বিপন্ন

ব্রাসেলসে অনুষ্ঠিত পরিবেশ বিষয়ক সম্মেলনে জাতিসংঘের শতাধিক সদস্য রাষ্ট্রের প্রতিনিধিদের সামনে সর্বশেষ যে প্রতিবেদনটি পেশ করা হয় সেখানে উল্লেখ রয়েছে, বিশ্বব্যাপী জীববৈচিত্র্য ও পরিবেশ দূষণের ফলে বর্তমানে যে প্রক্রিয়ায় জলবায়ু পরিবর্তন হচ্ছে, তাতে আগামী ২০৮০ সালের মধ্যে আফ্রিকা ও এশিয়ার ৩০০ কোটি মানুষ ভয়াবহ পানি ও খাদ্য সঙ্কটে পড়বে৷ এছাড়া ২০ থেকে ৩০ শতাংশ গাছপালা ও প্রাণী রয়েছে সর্বোচ্চ হুমকির মুখে, যারা পৃথিবী হতে বিলুপ্ত হয়ে যেতে পারে৷ পাশাপাশি বলা হয়েছে, বিশ্বের তাপমাত্রা যদি ১ দশমিক ৫ হতে ২ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস বৃদ্ধি পায় তবে ২০ থেকে ৩০ শতাংশ গাছপালা ও পশু পাখির জীবনের উপর ভয়াবহ ঝুঁকির আশঙ্কা বিদ্যমান৷ অদূর ভবিষ্যতে পৃথিবীতে গ্রিন হাউজ গ্যাসের প্রভাবে আবহাওয়া পরিবর্তনের কারণে অনাবৃষ্টি, অতিবৃষ্টি, ঝড়ঝঞ্ঝা, খরা, বন্যা, বরফ গলে পানির উচ্চতা বৃদ্ধি ও পানি সঙ্কট দেখা দিতে পারে৷ তথ্য অনুযায়ী যে বিষয়টি সবচেয়ে বেশি উদ্বেগের কারণ, তা হলো ২০৮০ সালের মধ্যে ১১০ থেকে ৩০০ কোটি মানুষ ভয়াবহ পানি সঙ্কটে পড়বে এবং উন্নয়নশীল দেশগুলোতে জীববৈচিত্র্য হুমকির মুখে পতিত হবে৷

ভারত বিশ্বের সর্বাধিক জীববৈচিত্র্য সম্পন্ন অঞ্চলগুলির অন্যতম৷ দেশের রাজনৈতিক সীমানার মধ্যে বিভিন্ন ধরনের পরিবেশ ক্ষেত্র দেখা যায়; মরুভূমি, উচ্চ পার্বত্য অঞ্চল, উচ্চভূমি, ক্রান্তীয় ও নাতিশীতোষ্ণ বনাঞ্চল, জলাভূমি, সমভূমি, তৃণভূমি, নদী অববাহিকা ও দ্বীপপুঞ্জ৷ ভারতে তিনটি বায়োডাইভার্সিটি হটস্পট দেখা যায়: পশ্চিমঘাট পর্বতমালা, পূর্ব হিমালয় ও ভারত-মিয়ানমার সীমান্ত বরাবর প্রসারিত পার্বত্য অঞ্চল৷ এই হটস্পটগুলিতে অসংখ্য প্রজাতির দেখা মেলে৷

Andamanen und Nikobaren

ভারতের সমুদ্র উপকূলও এখন হুমকির মুখে

ভারতের পরিবেশ ক্ষেত্রগুলিতে বৃষ্টিপাত, সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে উচ্চতা, টোপোগ্রাফি ও অক্ষাংশের কারণে বিশেষ প্রকারের বৈচিত্র্য লক্ষিত হয়৷ ভারতের উদ্ভিদ ও প্রাণীজগতকে বিশেষভাবে প্রভাবিত করে মৌসুমি বায়ুপ্রবাহ৷ ভারত ইন্দোমালয় জৈবভৌগোলিক ক্ষেত্রের একটি বৃহত্তর অংশ দখল করে আছে৷ তাই ভারতের বহু উদ্ভিদ ও প্রাণীর সঙ্গে মালয়দেশীয় উদ্ভিদ ও প্রাণীর একরূপতা পরিলক্ষিত হয়৷

গবেষণায় দেখা যাচ্ছে, এখানে জীব পরিবেশের প্রতি সংবেদনশীলতা এত বেশি যে, আজ শুধু অবক্ষয়ের রাশ টেনে ধরলেই জীববিলুপ্তির গতি রোধ করা যাবে না৷ বরং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সর্বশেষ কৌশলগুলো প্রয়োগ করে বিভিন্ন রকমের সক্রিয় উদ্যোগ নিতে হবে৷

সম্প্রতি ভারতে এক গবেষণায় দেখা গেলো সেখানে প্রাণী বৈচিত্র্য মারাত্নকভাবে হুমকির শিকার৷ তাছাড়া কৃষিতে ব্যপকহারে কীটনাশক ব্যবহার, বন উজাড়, সমুদ্র ও নদী দূষণের কবলে পড়েছে উপমহাদেশের এই বড় দেশটি৷ সামুদ্রিক প্রাণীগুলোর বসত ও আচরণ, পুরো বা অর্ধনিমজ্জিত উদ্ভিদের আশ্রয়, মাছের প্রজনন অভিবাসন, ঝাঁকে ঝাঁকে চলার অভ্যাস-সবকিছু বিজ্ঞানীদের গবেষণায় এসেছে৷ তারা দেখতে পেয়েছেন, কিছু দূষণ জীবের জন্য সরাসরি ক্ষতিকর, আর কিছু শরীরে জমে জমে, খাদ্য চেইনে গিয়ে শরীরবৃত্তকে কাবু করে ফেলছে প্রজন্মের পর প্রজন্ম৷ উভয়ের একই ফল-ভয়াবহ রকমের জীববিলুপ্তি৷ খাঁড়ি ম্যানগ্রোভ আর প্রবাল গঠনগুলোয় তাই এখন চলছে জীববৈচিত্র্যের বেঁচে থাকার লড়াই৷

এখনই যদি বিশ্ব জনমত, মানুষের আচরণ এবং বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির উদ্যোগের সঠিক সক্রিয়তা না ঘটে, তাহলে জীববৈচিত্র্যের সঙ্গে সঙ্গে আমাদের ভবিষ্যতও নিশ্চিতভাবে বিপন্ন হবে৷

প্রতিবেদক: সাগর সরওয়ার, সম্পাদনা: রিয়াজুল ইসলাম

সংশ্লিষ্ট বিষয়