1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

অলিম্পিক মশাল নিয়ে মহাকাশে সোয়ুজ

২০১৪ সালের শীতকালীন অলিম্পিকের মশাল বহনকারী রকেটটি সফলভাবে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে পৌঁছেছে৷ কাজাখস্তানের বাইকোনুর কসমোড্রোম থেকে বৃহস্পতিবার সকালে তিন নভোচারীকে নিয়ে রকেটটি যাত্রা করে৷

default

আইএসএস এ ডক করছে মশালবাহী সোয়ুজ

বিশ্বের প্রথম উপগ্রহ, মহাকাশে প্রথম মানব পাঠানো, প্রথম উন্মুক্ত মহাকাশে বিচরণ, প্রথম নারী নভোচারী – এসব ইতিহাসের সাথে আর একটি ঐতিহাসিক ঘটনা যুক্ত হতে যাচ্ছে রাশিয়ার নামের সঙ্গে৷ ইতিহাসে প্রথমবার উন্মুক্ত মহাকাশে মশাল ঘুরিয়ে আনার উদ্দেশ্যে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশন বা আইএসএস-এ পৌঁছেছে সোয়ুজ৷ ঐ মশাল দিয়ে ২০১৪ সালের শীতকালীন অলিম্পিকে স্টেডিয়ামের মূল মশাল জ্বালানো হবে৷

স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার সকাল সোয়া আটটায় কাজাখস্তানের বাইকোনুর কসমোড্রোম থেকে সোয়ুজ এফজি রকেট এবং সোয়ুজ টিএমএ ক্যাপসুলের সফল উৎক্ষেপণ হয় বলে জানিয়েছে রাশিয়ার মহাকাশ সংস্থা৷ রকেটে শীতকালীন অলিম্পিকের নীল রঙের ‘লোগো' আঁকা আছে৷ মার্কিন নভোচারী রিক ম্যাস্ট্রাচিয়ো, রুশ নভোচারী মিখাইল তুরিন এবং জাপানের নভোচারী কোইচি ওয়াকাতা আছেন ঐ রকেটে৷ ৬ ঘণ্টা পর তাঁরা আন্তর্জাতিক মহাকাশ কেন্দ্র আইএসএস-এ পৌঁছান বলে জানিয়েছে সংস্থাটি৷

Baikonur Astronauten Olympisches Feuer Weltraum Start 06.11.2013

এই তিন নভোচারীই মশাল নিয়ে গেছেন

তবে নিরাপত্তার খাতিরে নভোযানে নেয়ার সময় মশালটি জ্বালানো হয়নি৷ কেননা এতে যে অক্সিজেন সৃষ্টি হতো, তার ফলে বড় কোনো দুর্ঘটনা ঘটতে পারত৷ এর আগেও ১৯৯৬ সালে মার্কিন মহাকাশ শাটল অ্যাটলান্টিস অ্যাটলান্টা সামার অলিম্পিকের মশাল বহন করেছিল, কিন্তু সেটি উন্মুক্ত মহাকাশে নেয়া হয়নি৷

উৎক্ষেপণের কয়েক ঘণ্টা আগে বুধবার রুশ নভোচারী মিখাইল তুরিন সাংবাদিকদের বলেন, শান্তির এই প্রতীক বহন করার দায়িত্ব পেয়ে তাঁরা নিজেদের সৌভাগ্যবান মনে করছেন৷ মশালটি মহাশূন্যে থাকবে ৫ দিন৷ রুশ নভোচারী ওলেগ কোতভ ও সের্গেই রিয়াজানস্কি, যাঁরা বর্তমানে আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে অবস্থান করছেন, তাঁরা মশালটি ৯ই নভেম্বর মহাশূন্যে নিয়ে যাবেন৷ ১১ই নভেম্বর মশালটি নিয়ে পৃথিবীতে ফিরবেন আগে থেকে আইএসএস-এ থাকা তিন নভোচারী৷

রাশিয়া শুধু এই অভিযান দিয়ে বিশ্বকে অবাক করেনি, ৭ই অক্টোবর যে মশাল দৌড় শুরু হয়েছে, তাতেও অবাক বিশ্ব৷ ১৪ হাজার মশাল বাহক ৬৫ হাজার কিলোমিটার পথ পাড়ি দেবেন কখনো হেঁটে, কখনো ট্রেনে, বিমানে বা গাড়িতে, এমনকি তিন চাকার ঘোড়ার গাড়ি বা স্লেজ গাড়িতেও৷ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ১৩০টি শহর প্রদক্ষিণ করবেন মশাল বাহকরা৷ দেশের প্রায় ১৩ কোটি মানুষ এই দৌড় সরাসরি দেখতে পারবেন৷

আগামী বছরের ৭ ফেব্রুয়ারি সোচির স্টেডিয়ামে ঐ মশাল দিয়ে ২০১৪ সালের শীত অলিম্পিক স্টেডিয়ামের মূল মশাল জ্বালানো হবে৷ আর ঐ মাসের ২৩ তারিখে শুরু হবে শীতকালীন অলিম্পিক৷

এপিবি/ডিজি(এপি,এএফপি)

নির্বাচিত প্রতিবেদন