1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি ইউরোপ

অর্গানিক লেখা পণ্যগুলি কি সত্যিই ‘অর্গানিক’?

জার্মানিতে অর্গানিক বা জৈব পদ্ধতিতে উৎপাদিত পণ্যের প্রতি ঝোঁক বাড়ছে ক্রেতাদের৷ এই ধরনের খাদ্যদ্রব্য স্বাস্থ্যকর বলে মনে করছে মানুষ৷ কিন্তু প্রশ্ন হলো, ‘অর্গানিক’ লেখা লেবেল থাকলেই কি এই সব জিনিস স্বাস্থ্যসম্মত?

কোনো প্যাকেটের লেবেলে ‘অর্গানিক' শব্দটি থাকলে ভোক্তারা নিশ্চিত থাকতে পারেন যে, ভেতরের পণ্যটি পরিবেশবান্ধব কোনো কৃষিখামার থেকে এসেছে৷ ‘‘অর্গানিক, ইকোলজিক্যাল বা জৈব লেবেলের একটা সুবিধা হলো এই শব্দটি আইনত নির্ধারিত,'' বলেন জার্মান ভোক্তাসুরক্ষা সংস্থা ফুডওয়াচ-এর আন্ড্রেয়াস ভিংকলার৷ তাঁর ভাষায়, ‘‘প্যাকেটের ওপরে জৈব লেখা থাকলে ভেতরেও কমপক্ষে বায়ো মানের জিনিস থাকবে সে ব্যাপারে আমি নিশ্চিত থাকতে পারি৷ এটা লঙ্ঘিত হয়েছে বলে কোনো ইঙ্গিত পাওয়া যায়নি৷''

পরস্পরবিরোধী প্রবণতা

জার্মানিতে জৈব পণ্যের প্রতি একটা পরস্পরবিরোধী প্রবণতা লক্ষ্য করা যায়৷ একদিকে গত দশকে এর চাহিদা হু হু করে বেড়ে যাচ্ছে৷ জৈব খাদ্যদ্রব্য বিক্রির ক্ষেত্রে দ্বিতীয় বৃহত্তম দেশ হিসাবে পরিচিতি পেয়েছে জার্মানি৷ যার আর্থিক পরিমাণ সাত বিলিয়ন ইউরো৷ এই দিক দিয়ে বড় ও গুরুত্বপূর্ণ বাজারে পরিণত হয়েছে জার্মানি৷ বলেন কৃষি ও খাদ্যের ফেডারেল এজেন্সির প্রেসিডেন্ট ক্রিস্টোফ আইডেন৷

‘অর্গানিক' – কথাটি শুনলে মনে হবে স্বাস্থ্যকর জীবন৷ ইউরোপীয় জৈব লেবেল নিশ্চয়তা দেয় যে, এতে রাসায়নিক কীটনাশক ও সার ব্যবহার করা হয়নি৷ পশুখাদ্যে জিন পরিবর্তন করা উদ্ভিদ মেশানো হয়নি৷ সংযোজিত বস্তুর পরিমাণও সীমিত৷

গতানুগতিক খাদ্যে যেখানে ৩২০ সংযোজিত বস্তু অনুমোদিত৷ সেখানে জৈবখাদ্যে এই রকম পদার্থ থাকে ৫০টিরও কম৷

পরিবেশবান্ধব চাষ হয় যে জমিতে

অন্যদিকে জৈবপদ্ধতিতে চাষাবাদের প্রসার খুব একটা চোখে পড়ার মতো নয় জার্মানিতে৷ ১০০-এর মধ্যে মাত্র সাতটি কৃষিজমিতে পরিবেশবান্ধব চাষাবাদ হয়৷ সব মিলিয়ে ২০ হাজার কৃষিখামারে জৈবিক পদ্ধতিতে কৃষিকাজ হয়৷ এক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞ কৃষকের সংখ্যাও কিছুটা নিম্নমুখী৷ ভোক্তাদের চাহিদা সত্ত্বেও নিজেদের আর্থিক লাভের দিকটিও দেখতে হয় তাঁদের৷

জমির ইজারার হার, উৎপাদনের খরচ ইত্যাদি খুব বেশি৷ জৈব খাদ্যদ্রব্যের দাম অতিরিক্ত হলে ভোক্তারাও হাত প্রসারিত করতে চান না৷ অন্যদিকে অনিয়মের জন্য প্রায়ই জার্মান জৈবখামারগুলি খবরের শিরোনাম হচ্ছে৷ যেমন পশুখাদ্য আনা হয়েছে এমন সব দেশ থেকে, যা ইউরোপীয় মানসম্মত নয়৷

জার্মানিতে বেশ আদৃত

৭০টি জাতীয় অর্গানিক বা জৈব লেবেল ইউরোপীয় মানের সমপর্যায়ের বলে স্বীকৃতি দেওয়া হয়েছে৷ নিয়মিতভাবে পর্যবেক্ষণ করলে বোঝা যাবে বায়ো কৃষিখামারগুলি সঠিক পদ্ধতিতে চাষাবাদ করছে কিনা৷

উৎপত্তি যেখানেই হোক না কেন জৈব লেবেল জার্মানিতে বেশ আদৃত৷ জার্মানি ও ইউরোপীয় জৈব লেবেল অনেকটা সমমানের৷ অবশ্য ফুডওয়াচ এত ধরনের সার্টিফিকেটের সমালোচনা করে৷

ভোক্তারা এত বেশি লেবেল দেখে অনেকটা দিশাহারা হয়ে যান, বুঝে উঠতে পারেন না কোনটা সিরিয়াস আর কোনটাই বা বিজ্ঞাপনের চমক৷ ভোজ্যপণ্যের শিল্পকারখানাগুলি নিজেদের ‘ইমেজ' বাড়ানোর জন্য অনেক সময় এই ধরনের লেবেল লাগিয়ে থাকে৷ যেমন ‘প্রিমিয়াম' বা ‘প্রজাতি উপযোগী কৃষিখামার' ইত্যাদি৷

ফুডওয়াচের দাবি, এক্ষেত্রে স্বচ্ছ ও সুস্পষ্ট চিহ্ন থাকতে হবে৷ যেখানে খাদ্যের পুষ্টিগত মান, উৎপত্তি, জিনপ্রযুক্তির প্রয়োগ ইত্যাদির উল্লেখ থাকবে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়