1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

জার্মানি ইউরোপ

অভিভাবকহীন শরণার্থীরা কি নিজেরাই ‘ব়্যাডিকাল’ হয়ে পড়ছে?

জার্মানিতে ১৭ বছরের এক শরণার্থীর হামলায় পাঁচজন আহত হওয়ার ঘটনায় দেশটিতে আসা সঙ্গীহীন শরণার্থীদের নিয়ে আলোচনা শুরু হয়েছে৷ কট্টর ইসলামপন্থিরা তাদের ব্যবহার করছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে৷

Bayern Attacke in Regionalzug bei Würzburg-Heidingsfeld Blutfleck

ট্রেনের এই অংশেই হামলার ঘটনা ঘটে

সোমবার রাতে বাভেরিয়া রাজ্যে এক ট্রেনের মধ্যে কুড়াল ও ছুরি নিয়ে হামলা চালায় ঐ শরণার্থী৷ এতে রেলের চার যাত্রী আহত হন৷ এরপর হামলকারী ট্রেন থেকে নেমে পালিয়ে যাওয়ার সময় রাস্তায় এক নারীকে কুপিয়ে জখম করে৷ পরে পুলিশের গুলিতে প্রাণ হারায় ঐ আততায়ী৷

হামলাকারী এই শরণার্থী গত বছরের জুনে জার্মানিতে প্রবেশ করেছিল৷ সঙ্গে তার বাবা-মা কিংবা কোনো অভিভাবক ছিল না৷ বয়স ১৭ হওয়ায় তাকে ‘আনঅ্যাকম্পেনিড' অর্থাৎ অভিভাবকহীন শরণার্থী হিসেবে নথিভুক্ত করা হয়৷ এরপর গত কয়েকমাস ধরে সে এক জার্মান পরিবারের সঙ্গে বসবাস করছিল৷

ঐ হামলাকারীর মতো জার্মানিতে সঙ্গীহীন শরণার্থীর সংখ্যা গত জানুয়ারি মাস পর্যন্ত ৬০ হাজারেরও বেশি ছিল বলে জানিয়েছে ‘ফেডারেল অ্যাসোসিয়েশন ফর আনঅ্যাকম্পেনিড মাইনর রিফিউজিস'৷ এদের মধ্যে বেশিরভাগেরই বয়স ১৬-১৭'র মধ্যে৷

বাভেরিয়া রাজ্যের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ইওয়াখিম হেয়ারমান মঙ্গলবার জানান, হামলাকারীর ঘরে তথাকথিত ইসলামিক স্টেট বা আইএস এর হাতে আঁকা একটি পতাকা পাওয়া গেছে৷ তাতে পশতু ভাষায় কিছু লেখা ছিল৷ এই ঘটনা থেকে হেয়ারমান মনে করছেন, ‘‘হয়ত সে সাম্প্রতিক সময়ে নিজে নিজেই ব়্যাডিকাল হয়ে পড়েছিল৷''

সতর্কবার্তা

জার্মানিতে বসবাসকারী কট্টরপন্থি সালাফিরা দেশটিতে আসা শরণার্থীদের তাদের (সালাফিদের) দলে ভেড়াতে পারে বলে গত বছরই সতর্ক করে দিয়েছিল জার্মানির অভ্যন্তরীণ গোয়েন্দা সংস্থা৷

শরণার্থীদের মধ্যে এমন নিয়োগ প্রক্রিয়া চলছে বলে ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন ‘ভায়োলেন্স প্রিভেনশন নেটওয়ার্ক' বা ভিপিএন এর ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা ইউলিয়া রাইনেল্ট৷ তাঁর সংস্থা অভিভাবকহীন শরণার্থীদের কাউন্সেলিং সেবা দিয়ে থাকে৷ তিনি মনে করেন, যেসব কিশোর শরণার্থী বাবা-মা'র সঙ্গে থাকে এবং যারা ভাষা ও সংস্কৃতি জানার কারণে অন্যের সঙ্গে মিশতে পারে, তাদের চেয়ে, যারা অভিভাবকহীন অবস্থায় জার্মানিতে এসেছে, তাদের মধ্যে ব়্যাডিকাল হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা বেশি থাকে৷ তবে সেটি আসলেই ঘটে কিনা তা এখনই বলা যাচ্ছে না৷

রাইনেল্ট বলেন, সাধারণত একজন ব্যক্তি কট্টরপন্থিদের সংস্পর্শে গেলে, তাদের সঙ্গে মিশলে, আলাপ-আলোচনায় অংশ নিলে ‘ব়্যাডিকাল' হয়ে ওঠে৷ তবে এর ব্যতিক্রমও আছে৷ ‘‘যেমন আমরা দেখছি শুধু সামাজিক মাধ্যম ব্যবহার করেও কেউ কেউ অতি দ্রুত ব়্যাডিকাল হয়ে উঠছে-'' বলেন তিনি৷

Husamuddin Meyer

ইমাম মায়ার হুসামুদ্দিন

এক ইমাম যা বললেন

জার্মানির ভিজবাডেন শহরের ইমাম মায়ার হুসামুদ্দিন ডি-ব়্যাডিকালাইজেশন প্রক্রিয়ার সঙ্গে যুক্ত৷ তিনি তাঁর অভিজ্ঞতা থেকে দেখেছেন, অভিভাবকহীন শরণার্থীদেরই ব়্যাডিকাল হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা বেশি থাকে৷ ‘‘তাদের অনেকে এমন সব মানসিক অবস্থার মধ্যে থাকে যে তাদের সহজেই ব়্যাডিকাল ভাবাধারায় উদ্বুদ্ধ করা যায়৷'' কট্টরপন্থিরাও এমন তরুণদের খুঁজে বের করতে সক্ষম যাদের সহজেই কোনো কিছু করতে রাজি করানো যায়, বলেন হুসামুদ্দিন৷

এই ইমাম মনে করেন, আইএস অনুসারী বাড়াতে এখন শরণার্থীদের দিকে নজর দিয়েছে৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়