1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

অভিবাসীদের আশ্রয় প্রসঙ্গে ইটালি-ফ্রান্স মুখোমুখি

আফ্রিকান অভিবাসীদের বহনকারী ইটালির ট্রেন আটকে দিল ফ্রান্স৷ তবে এর মাধ্যমে ইউরোপীয় ইউনিয়নের নীতি লঙ্ঘন করেছে প্যারিস, এমন অভিযোগ রোমের৷

default

শরণর্থীর ঢল একা সামলাতে নারাজ ইটালি

ইটালির রেল কর্তৃপক্ষ এবং সীমান্ত পুলিশ জানিয়েছে, রবিবার ভেন্টিমিগলিয়া-মেন্টন সীমান্তে ইটালির সকল ট্রেন আটকে দিয়েছে ফ্রান্স৷ এর প্রতিবাদ জানাতে ভেন্টিমিগলিয়া সীমান্তে বিক্ষোভ করেছে শত শত ইটালীয় নাগরিক৷ তারা ফ্রান্স বিরোধী স্লোগান দেয়৷ এমনকি মেন্টনে অবস্থিত ফরাসি কনসুলেট দপ্তরের সামনে বিক্ষোভ প্রদর্শনের চেষ্টা করে তারা৷

ঘটনার পরপরই ইটালির পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফ্রাঙ্কো ফ্রাটিনি প্যারিসে নিযুক্ত ইটালির রাষ্ট্রদূতকে তাঁর দেশের পক্ষ থেকে এই ঘটনার কড়া প্রতিবাদ জানিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দেন৷ ইটালির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে পাঠানো ঐ প্রতিবাদে বলা হয় যে, ‘‘ফ্রান্সের এই পদক্ষেপ অন্যায় এবং ইউরোপের নীতিমালার সুস্পষ্ট লঙ্ঘন৷''

Lampedusa Flüchtlinge Italien Europa Nordafrika

শরণর্থীর ঢল একা সামলাতে নারাজ ইটালি

এছাড়া টিউনিশিয়া এবং উত্তর আফ্রিকার সংঘাতপূর্ণ দেশগুলো থেকে যে বিশাল সংখ্যক অভিবাসী ইটালির দক্ষিণের দ্বীপ লাম্পেডুসায় পাড়ি জমাচ্ছে তাদের চাপ মোকাবিলায় একা হয়ে পড়েছে ইটালি৷ ইউরোপীয় মিত্রদের কাছ থেকে এক্ষেত্রে কোন সহযোগিতা পাচ্ছে না বলে অভিযোগ তুলেছে রোম৷

এদিকে, বিপুল সংখ্যক অভিবাসীর অনুপ্রবেশ মোকাবিলায় ইটালি তাদেরকে সাময়িক অনুমতিপত্র দিয়ে ইউরোপের অন্যান্য দেশে পাঠিয়ে দিচ্ছে৷ তবে ইটালির এই উদ্যোগের ঘোর বিরোধিতা করেছে ফ্রান্স ও জার্মানিসহ ইউরোপের বেশ কিছু দেশ৷ ইইউ'ভুক্ত অনেক দেশের আশঙ্কা, এতো বেশি সংখ্যক অভিবাসীকে আশ্রয় দিলে তা ইউরোপে অবৈধভাবে প্রবেশের চেষ্টাকে আরো বেশি উৎসাহিত করবে৷ অবশ্য ফরাসি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় সূত্র এক বিবৃতিতে জানিয়েছে যে, ঐ সীমান্তপথে ইটালির সাথে আবারও ট্রেন যোগাযোগ চালু হয়েছে৷

প্রতিবেদন: হোসাইন আব্দুল হাই

সম্পাদনা: সঞ্জীব বর্মন

সংশ্লিষ্ট বিষয়