1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

অভিজিৎ হত্যা: অপরাধীদের এখনো চিহ্নিত করা যায়নি

লেখক ও ব্লগার অভিজিৎ রায় হত্যার দু'সপ্তাহ পরও হত্যাকাণ্ডে জড়িতদের চিহ্নিত করতে পারেনি তদন্তকারীরা৷ তবে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা বিভাগের প্রধান, যুগ্ম কমিশনার মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘‘আমরা তদন্তে কোনো ত্রুটি রাখছি না৷''

গত ২৬শে ফেব্রুয়ারি রাতে বইমেলা থেকে বের হওয়ার পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের টিএসসির উল্টো দিকে সোহরাওয়ার্দি উদ্যানের গেটের সামনে অভিজিত্‍ রায় এবং তাঁর স্ত্রী রাফিদা আহমেদ বন্যার ওপর হামলা চালায় দুর্বৃত্তরা৷ হাসপাতালে নেয়ার পর অভিজিত্‍ মারা যান৷ গুরুতর আহত বন্যাকে ঢাকায় প্রাথমিক চিকিত্‍সার পর যুক্তরাষ্ট্রে পাঠানো হয়েছে হত ৩রা মার্চ৷

হত্যাকাণ্ডের তিনদিন পর আটক করা হয় চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক ছাত্র উগ্রপন্থি ফারাবীকে৷ তাকে রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করছে ঢাকা মহানগর গোয়েন্দা বিভাগ বা ডিবি৷ ফারাবী ফেসবুকে অভিজিত্‍কে হত্যার হুমকি দিয়েছিল৷ ডিবি-র যুগ্ম কমিশনার মনিরুল ইসলাম ডয়চে ভেলেকে জানান, ‘‘ফারাবী অভিজিৎকে হত্যার হুমকি দেয়ার কথা স্বীকার করলেও হত্যায় জড়িত থাকার কথা এখনো স্বীকার করেনি৷ তার কাছ থেকে এই হত্যাকাণ্ডের ব্যাপারে এখনো কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি৷''

মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘‘আমরা ফারাবীর ফেসবুক ধরে আরো অন্তত ১০ জনকে চিহ্নিত করেছি, যারা অভিজিৎকে বিভিন্ন সময় হত্যার প্ররোচণা দিয়েছে৷ তারাও উগ্রপন্থি এবং ফারাবীর অনুসারী৷ তাদের মধ্যে অন্তত ছয়জন ছাত্র৷ তাদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে৷''

Blogger Avijit Roy ###ACHTUNG SCHLECHTER QUALITÄT###

ব্লগার অভিজিৎ রায়

এদিকে রানা নামে নর্থসাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের এক ছাত্রও রয়েছে সন্দেহের তালিকায়৷ রানা আনসারুল্লাহ বাংলা টিমের সদস্য৷ ব্লগার রাজীব হত্যার সময়ই তার নাম প্রথম জানা যায়৷ ডিবি জানায়, রানাকে ধরিয়ে দিতে পুরস্কার ঘোষণার চিন্তা করছেন তারা৷

মনিরুল ইসলাম দাবি করেন, ‘‘অপরাধী গ্রেপ্তারে এখনো সাফল্য না থাকলেও, মামলার তদন্ত প্রক্রিয়া সন্তোষজনকভাবেই এগোচ্ছে৷ মামলার আলামত সংগ্রহ, তথ্য সংগ্রহ এবং অন্যান্য দিক এগিয়ে যাচ্ছে৷ এর মাধ্যমেই তদন্ত কাজ এগোচ্ছে৷ এখনো কোনো প্রত্যক্ষদর্শীকে খুঁজে পাওয়া না গেলেও, চেষ্টা করা হচ্ছে৷ তবে এটা নিশ্চিত হওয়া গেছে যে, হত্যাকাণ্ডে দু'জন অংশ নেয়৷''

অভিজিত্‍ ও বন্যা আক্রান্ত হওয়ার পর শাহবাগ থানার সাব ইন্সপেক্টর (এসআই) সোহেল রানা থানা থেকে প্রথম ঘটনাস্থলে যান৷ অবশ্য তিনি গিয়ে পৌঁছানোর আগেই তাঁদের হাসপাতালে নেয়া হয়৷ সোহেল রানা ডয়চে ভেলেকে জানান, ‘‘আমি ঘটনাস্থলে প্রত্যক্ষদর্শী এক নারীকে (৫০) পেয়েছিলাম৷ তিনিই জানান যে, অভিজিত্‍ ও বন্যাকে দু'জন আক্রমণ করে৷ তিনি তাঁদের রক্ষায় এগিয়ে গেলে তাঁকেও ভয় দেখায় দুর্বৃত্তরা৷ এরপর আমি ভয়ে রাস্তায় পড়ে গিয়ে জ্ঞান হারাই৷''

সোহেল রানা দুঃখ করে জানান যে, সে সময় তিনি ঐ নারীর নাম ও ঠিকানা রাখেননি৷ ফলে এখন আর তাঁকে খুঁজে পাওয়া যাচ্ছে না৷

সোহেল রানা ঘটনাস্থল থেকে আলামত সংগ্রহ করে আবার থানায় ফিরে যান৷ আলমতের মধ্যে রয়েছে: কাগজ দিয়ে মোড়ানো দু'টি রক্তমাখা চাপাতি, একটি ব্যাগ, ব্যাগের মধ্যে দু'টি পুরনো প্যান্ট, কিছু ওষুধ (ট্যাবলেট), খবরের কাগজ, একাটি চশমা এবং কাটা একটি আঙুল৷ পরে তিনি নিশ্চিত হন যে আঙুলটি অভিজিত্‍ রায়ের স্ত্রী বন্যার৷

যুগ্ম কমিশনার মনিরুল ইসলাম জানান, ‘‘এ সব আলামতের একটি অংশ যুক্তরাষ্ট্রের এফবিআই ল্যাবে পরীক্ষা করা হবে৷ এ জন্য আদালতের অনুমতি চওয়া হয়েছে৷ এছাড়া ডিএনএ পরীক্ষার অনুমতিও পাওয়া গেছে৷''

অন্যদিকে অভিজিত্‍ হত্যার পর এফবিআই-র চার সদস্য ঢাকায় এসেছেন তদন্ত কাজে সহায়তার জন্য৷ তাঁরা এরই মধ্যে হত্যাকাণ্ডের ঘটনাস্থল পরিদর্শন এবং অভিজিতের বাবা অধ্যাপক ড. অজয় রায়ের সঙ্গে কথা বলেছেন৷ তাঁরা গোয়েন্দা বিভাগের তদন্তকারীদের সঙ্গেও মামলার তদন্ত নিয়ে কয়েক দফা বৈঠক করেছেন৷ মামলার আলামত দেখে দিয়েছেন মতামত৷

মনিরুল ইসলাম বলেন, ‘‘এফবিআই সদস্যরাও মনে করেন যে, অভিজিৎকে উগ্রপন্থি বা জঙ্গিরাই হত্যা করেছে৷ আমাদের তদন্তও একই সন্দেহকে কেন্দ্র করে এগোচ্ছে৷ এই তদন্ত এফবিআই পরামর্শ ও প্রযুক্তিগত সহায়তা দুটোই দিচ্ছে৷''

তিনি জানান, ‘‘অভিজিত্‍ ও বন্যা দু'জনই যুক্তরাষ্ট্রের নাগরিক৷ তাই সে'দেশেও একটি মামলা দায়ের করার প্রস্তুতি চলছে বলে ঢাকায় এফবিআই সদস্যরা জানিয়েছেন৷''

নির্বাচিত প্রতিবেদন

সংশ্লিষ্ট বিষয়