1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

অফিসটা কাজের জায়গা, নাকি খেলার?

অফিসটা কাজের জায়গা, খেলার জায়গা নয়, এটা যাঁরা বলতেন অথবা ভাবতেন, তাঁদের দিন গেছে৷ হালফ্যাশনের কোম্পানিগুলোতে অফিসেই থাকে জিম, কাফে, টেবিল টেনিস খেলার জায়গা৷ কিন্তু কেন?

ভিডিও দেখুন 03:59

হালফ্যাশনের কোম্পানিতে কাজ করার মজা

টেবিল টেনিস অথবা বিলিয়ার্ড খেলা; তারপর জিম আর কাফে হয়ে শেষমেষ আবার কাজে ফেরা৷ ভালো শ্রমিক-কর্মচারীদের ধরে রাখার জন্য কোম্পানিরা আজকাল নানারকমের সুযোগ-সুবিধা দিয়ে থাকে – বিশেষ করে সেই সব সংস্থা, যারা তাদের কর্মীদের সৃজনশীলতার উপর নির্ভর৷ কর্মীদের এমন একটি পরিবেশ দিতে হবে, যা থেকে তারা সৃজনীশীল হবার প্রেরণা পায়৷ বহু স্টার্ট-আপ কোম্পানির অফিস বলতে একটা বড় হল, কোনো পার্টিশান বা কিউবিকল-এর ব্যবস্থা নেই৷

এখন প্রশ্ন হলো, কী ধরনের অফিস মানুষজনকে সৃজনীশীল করে তোলে? কী ধরনের পরিবেশ থেকে তারা প্রেরণা পায়? ফ্রাউনহোফার ইনস্টিটিউটের গবেষকরা বিষয়টি নিয়ে গবেষণা করেছেন৷

স্টুটগার্টের ফ্রাউনহোফার ইনস্টিটিউটের স্টেফান রিফ বললেন, ‘‘মানুষকে বেরিয়ে আসতে হবে, নতুন জিনিস খুঁজতে হবে, অন্য মানুষদের সঙ্গে দেখাসাক্ষাৎ করতে হবে৷ আমরা দেখেছি যে, কাজের জায়গা থেকে ১০ থেকে ১৫ শতাংশ অনুপস্থিত থাকলেই নতুন নতুন আইডিয়া আসে, যা নিয়ে আবার কাজে ফেরা যায়৷''

সৃজনীশীল পরিবেশ

ইনস্টিটিউটের অফিসগুলো সর্বাধুনিক গবেষণার ফলাফল অনুযায়ী তৈরি করা হয়েছে৷ অফিসের বিভিন্ন তলা পরস্পরের সঙ্গে একটি খোলা সিঁড়ি দিয়ে যুক্ত – এর ফলে নাকি কর্মীদের মধ্যে যোগাযোগ বাড়ে৷ কিন্তু যে অখণ্ড মনোযোগ দিয়ে কাজ করতে চায়, তার জন্য নিভৃত জায়গাও আছে৷

অফিসের মধ্যে পার্টিশানগুলো আওয়াজ কমানোর কাজ করে৷ কারোর কোনো বাঁধা চেয়ার-টেবিল নেই; প্রত্যেকে তার বসার জায়গা প্রতিদিন নতুন করে খুঁজে নেয়৷ অফিসের পরিবেশ হবে কর্মীদের প্রয়োজন-অপ্রয়োজনের কথা ভেবে – সেই পরিবেশে বৈচিত্র্য থাকা চাই, একঘেয়ে হলে চলবে না৷

যে সব কোম্পানি তাদের অফিস বৈজ্ঞানিক গবেষণার ফলাফল অনুযায়ী সাজাতে চায়, তাদের জন্য একটি থ্রি-ডি-সফটওয়্যার তৈরি করা হয়েছে, যা দিয়ে অফিসের ঘরগুলো ‘ভার্চুয়াল' পদ্ধতিতে ঘুরে দেখা যায়৷ এর ফলে আগে থেকেই বোঝা যায়, অফিসের পরিবেশ কর্মীদের ভালো লাগবে কিনা৷ মাইক্রোসফট যেমন জার্মানিতে তাদের মুখ্য কার্যালয় তৈরি করেছে ফ্রাউনহোফার ইনস্টিটিউটের সহযোগিতায়৷ আলোর প্রভাব নিয়েও পরীক্ষা-নিরীক্ষা চলেছে৷ এভাবে মিটিং রুমে দিবালোকের অনুকরণ করা যায়, এমনকি সূর্যাস্তও বাদ যায় না৷

‘কিকার' ছাড়া অফিস হয় না

কাজের দুনিয়া বদলে যাচ্ছে, পুমা-র মতো বড় বড় কোম্পানিগুলি তা উপলব্ধি করেছে৷ এখানে কর্মীদের গড় বয়স ৩৩৷ সারা বিশ্ব থেকে কমবয়সি মানুষজন আসে জার্মান মফঃস্বলের হ্যার্ৎসোগেনাউরাখে, যেখানে পুমা-র অফিস৷ তার খানিকটা এই বিধিবর্জিত কাজের পরিবেশের জন্যও বটে৷

নতুন অফিসরুমগুলো ডিজাইনারদের সাহায্য নিয়ে তৈরি করা হয়েছে৷ সহজ-সরল ঘরগুলিতে সৃজনীমূলক কাজ সহজ হবে, এই হলো আশা৷ কর্মীরা নিজেই বেছে নিতে পারেন, তারা একই টেবিলে কাজ করবেন, নাকি যখন যেখানে চান, সেখানে বসে কাজ করবেন৷

পুমা-র মানবসম্পদ ম্যানেজার ডিটমার ন্যোস সহকর্মীদের জিজ্ঞাসা করেছেন, এরকম খোলামেলা, যৌথ অফিস তাদের কেমন লাগে – কেননা একা নিজের অফিস পাবার উপায় নেই৷ ন্যোস বলেন, ‘‘নীতিগতভাবে দু'টি জিনিস গুরুত্বপূর্ণ, প্রথমত চোখের আড়াল আর দ্বিতীয়ত কথাবার্তা যাতে অন্যদের কানে না যায়৷ এই দু'টি পদক্ষেপ সঠিকভাবে নেওয়া হলে, ‘খোলা অফিস' নীতিতে ভালোই সাড়া পাওয়া যায়৷''

টেবিল-ফুটবল খেলার ‘কিকার'-টা আছে টিফিনের সময় একটু মজা করে নেওয়ার জন্য৷ স্টার্ট-আপ-দের দেখাদেখি বড় বড় থ্রিডি প্রযুক্তির সাহায্যে ঐতিহাসিক সম্পদ রক্ষার উদ্যোগকোম্পানিগুলোও এখন কিকার চালু করেছে৷

ক্লাউডিয়া লাসাক/এসি

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

এই বিষয়ে অডিও এবং ভিডিও

সংশ্লিষ্ট বিষয়