1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

অপেক্ষার প্রহর শেষ হতে চলেছে রাজকীয় বিয়ের

আর মাত্র তিনদিন৷ তারপর অপেক্ষা এবং সব ধরণের জল্পনা-কল্পনার অবসান ঘটবে রাজকীয় বিয়ের মধ্য দিয়ে৷

default

আগামী শুক্রবার প্রিন্স উইলিয়াম এবং কেট মিডলটন বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হতে যাচ্ছেন৷ ইতোমধ্যে এই দু'জনের বিয়ের আবেশ ছড়িয়ে গেছে গোটা বিশ্বে৷ ছোট-বড়, সাধারণ মানুষ, বিশেষ ব্যক্তি সবার জন্য আনন্দের বার্তা নিয়ে এসেছে এই বিয়ে৷ হোটেলে হোটেলে ভিড় বাড়ছে অতিথিদের৷ আর টিভির সামনে বসে কখন বিয়ের অনুষ্ঠান দেখা যাবে তার অপেক্ষায় রয়েছে বিশ্বের নানা প্রান্তের মানুষ৷

নানা আয়োজন চলছে বিয়েকে ঘিরে৷ স্কটল্যান্ড ইয়ার্ডসের অশ্বরোহী পুলিশদের একটি দল নাকি বিবাহের অনুষ্ঠানের শোভাযাত্রায় অংশ নেবে৷ তবে গোয়েন্দা হিসেবে নয়৷ শুধুই জাঁকজমক এবং আড়ম্বর হিসেবে৷

অন্যদিকে মেক্সিকোর ঊনিশ বছরের তরুণী, যিনি এই রাজকীয় বিয়ের নিমন্ত্রণ পাওয়ার জন্য ১৬ দিন ধরে অনশন করেছিলেন, তাকে ফেরত পাঠিয়েছে ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষ৷ মেক্সিকোর এই তরুণীর নাম ইসতিবেলিস সাভেজ৷ মেক্সিকো সিটি শহরের কোনো একজনের অনুগ্রহে তিনি স্পেন হয়ে লন্ডনে যাওয়ার টিকিট পান৷ কিন্তু ব্রিটিশ কর্তৃপক্ষ তাকে আবার স্পেনে ফেরত পাঠিয়েছে এই বলে যে, তার কাছে যথেষ্ট টাকা নেই এবং লন্ডনে নিরাপদে থাকার মতো তার কোনো জায়গা নেই৷ কিন্তু সাভেজ নাছোড়বান্দা৷ বলছে, তিনি ইংল্যান্ডে প্রবেশ করতে পারেন যদি তাকে বিমানবন্দর থেকে কেউ নিয়ে যায়৷ যেভাবে হোক এই বিয়ে তার দেখা চাই৷ আগামী বৃহস্পতিবার সাভেজ আবারও মেক্সিকো সিটি ছাড়ছেন৷ আশা করছেন এবার অন্তত ওয়েস্ট মিস্টার অ্যাবি অর্থাৎ যে গির্জাতে উইলিয়াম এবং মিডলটনের বিয়ে হবে তার বাইরে থেকে হলেও রাজকীয় বিয়ে দেখার সুযোগ পাবেন তিনি৷

উল্লেখ্য, গত নভেম্বরে উইলিয়াম এবং মিডলটনের বাগদানের কথা ঘোষণা করা হয় রাজ পরিবারের পক্ষ থেকে৷ তারপর থেকেই চলছে বিয়ের তোড়জোড়৷

প্রতিবেদন: জান্নাতুল ফেরদৌস

সম্পাদনা: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী