1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

অন্বেষণ

অপটিকাল জগতে সাইস কোম্পানির আধিপত্য

সাধারণ ক্যামেরা, মোবাইল ফোনের ক্যামেরা থেকে শুরু করে প্ল্যানেটোরিয়ামের প্রোজেক্টরের লেন্স – ভালো করে তাকালে হয়ত দেখবেন তা তৈরি করেছে জার্মানির কার্ল সাইস কোম্পানি৷ পরবর্তী প্রজন্মকেও আকৃষ্ট করতে এই সংস্থা উদ্যোগ নিচ্ছে৷

জার্মানির ইয়েনা শহরের স্কুল পড়ুয়াদের জন্য কার্ল সাইস কোম্পানি শহরের মাঝে এক তাঁবু গড়ে তুলেছে৷ ভেতরে ঢুকলে গবেষণার নানা সুযোগ পাওয়া যায়৷ এখানে তারা প্রজাপতির ডানা পরীক্ষা করতে পারে অথবা মাইক্রোস্কোপের নীচে সাপের চামড়া বিশ্লেষণ করতে পারে৷ একজন সঙ্গে একটা ক্রিস্টাল বা স্ফটিকখণ্ড নিয়ে এসেছে৷ স্কুল ছাত্র ফ্লোরিয়ান লাউকনার বলে, ‘‘আমি ক্রিস্টালের ধার দেখতে পাচ্ছি৷ কোণগুলি অনেকটা পিরামিডের মতো৷ অন্য পাথরও তার গায়ে লেগে রয়েছে৷ ব্যাপারটা নিয়ে আমার এত আগ্রহ, যে হয়তো আমি বড় হয়ে বিজ্ঞানী হবো৷ এভাবে খালি চোখে দেখা যায় না, এমন কত কত কী যে আবিষ্কার করা যায়!''

বিশ্বের প্রাচীনতম প্ল্যানেটোরিয়ামগুলির মধ্যে একটি এই শহরেই রয়েছে৷ সেখানেও শিশুদের বিজ্ঞান সম্পর্কে উৎসাহিত করে তোলার উদ্যোগ নেওয়া হয়৷ আধুনিক প্ল্যানেটোরিয়াম নক্ষত্র, মহাকাশ ও প্রকৃতির গল্প শোনায়৷ শিশুদের নানা প্রতিক্রিয়া শোনা যায়৷

একজন বললো, তার খুব ভালো লাগে, কারণ এখানে সবকিছু বুঝিয়ে বলা হয়৷ সব কিছু ঘোরে বলে তাদের আর ঘোরার প্রয়োজন হয় না৷

কার্ল সাইস কারখানা যেন শহরের মধ্যে আরেকটা শহর৷ কারখানার নিজস্ব প্ল্যানেটোরিয়ামে প্রযুক্তি পরীক্ষা করা হয়৷ এই যন্ত্রটি কলকাতায় পাঠানো হচ্ছে৷ ষাটের দশকে সেখানে সাইস কোম্পানির যে যন্ত্রটি পাঠানো হয়েছিল, সেটি বড় সেকেলে হয়ে গেছে৷ মানুষের চোখ প্রকৃতিকে হুবহু দেখতে পায়, ফিল্ম ক্যামেরা যা পারে না৷ সাইস কোম্পানির পদার্থবিদ ফল্কমার শরখট বলেন, ‘‘এই গোলক নক্ষত্রগুলি ফুটিয়ে তোলে৷ আলো বেরোনোর ফলে বড় লেন্সগুলি জ্বলজ্বল করছে৷ মোট ১২টি লেন্স রয়েছে৷ এই ১২টি প্রোজেক্টর দিয়ে আমরা গোটা রাতের আকাশ ফুটিয়ে তুলতে পারি৷''

পাশের হলেই প্ল্যানেটোরিয়ামের লেন্স তৈরি হয়৷ সব কাজ শেষ করে প্রতিদিন একটি করে প্রোজেক্টর প্রস্তুত হয়৷ দাম প্রায় ৫০,০০০ ইউরো৷ দুই জার্মানির পুনরেকত্রীকরণের পর পশ্চিম দিক থেকে আরও বেশি কম্পিউটার প্রযুক্তি এসেছিল৷ কোম্পানির ইঞ্জিনিয়ার ফ্রাংক সেমরাউ বলেন, ‘‘আমি মজা করে বলি, এমন যন্ত্রের উপযোগিতার প্রায় ৫০ শতাংশই আসে সফটওয়্যার থেকে৷ এই প্রযুক্তির সামনে আত্মসমর্পণ করতেই হয়৷

আর্কাইভের প্রধান কোম্পানির ইতিহাস জানেন৷ শীতল যুদ্ধের সময় সোভিয়েত জোটের মধ্যে সাইস ছিল সবচেয়ে বড় লেন্স কোম্পানি৷ তখন প্রায় ৭০,০০০ কর্মী এই সংস্থায় কাজ করতেন৷ এক নোবেলজয়ী পদার্থবিদের সঙ্গে সহযোগিতায় আধুনিক এই অপটিকাল মাইক্রোস্কোপ তৈরি হয়েছে৷ এই ক্ষেত্রে বেশ মুনাফা হয়৷ সাইস গোটা বিশ্বে প্রথম সারির কোম্পানি হিসেবে পরিচিত৷ কোম্পানির মার্কেটিং প্রধান ইয়খেন টাম বলেন, ‘‘মস্তিষ্ক নিয়ে গবেষণা একটা গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্র৷ প্রত্যেকটি স্নায়ুকোষের মধ্যে আদান-প্রদানের সূক্ষ্ম ছবিও পর্দায় আমরা দেখতে পাচ্ছি৷''

ভবিষ্যতের দক্ষ কর্মী খুঁজতে সাইস কোম্পানির এখনো তেমন অসুবিধা হচ্ছে না৷ গোটা অঞ্চলে অনেকেই এই কোম্পানিতে প্রশিক্ষণের সুযোগ পেতে আগ্রহী৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন

ইন্টারনেট লিংক

সংশ্লিষ্ট বিষয়