1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিজ্ঞান পরিবেশ

অন্যের ফেসবুক, টুইটার হ্যাক করা খুব সোজা

ইদানিং অনেক জায়গাতেই তারহীন ইন্টারনেট নেটওয়ার্ক পাওয়া যায়৷ এই নেটওয়ার্কে ল্যাপটপ বা নেটবুক যুক্ত করে ব্যবহার করা যায় ফেসবুক, টুইটার সহ নানা ওয়েবসাইট৷ সাবধান, এমন নেটওয়ার্কে ওত পেতে থাকতে পারে হ্যাকার৷

default

তারহীন নেটওয়ার্কে হ্যাকারের হানার আশঙ্কা (ফাইল ফটো)

জনপ্রিয় ইন্টারনেট ব্রাউজার ফায়ারফক্সের একটি প্লাগইন ফায়ারশিপ৷ এই প্লাগইন যেকোন উম্মুক্ত তারহীন নেটওয়ার্কে প্রবেশ করে অন্যের লগ ইন তথ্য চুরি করতে পারে৷ এরপর যিনি ফায়ারশিপ ব্যবহার করছেন, তাকে এসব তথ্য সরবরাহও করতে পারে এই প্রোগ্রাম৷ যার মানে দাঁড়াচ্ছে, আপনি যদি সেই তারহীন নেটওয়ার্কের ব্যবহারকারী হন তাহলে ক্ষতির মুখে পড়বেন৷ কেননা আপনার ইউজার নেইম, পাসওয়ার্ড চুরি করে তখন অন্য কেউ আপনার একাউন্টে প্রবেশের সুযোগ পাবে৷ করতে পারবে যেকোন পরিবর্তন৷

বর্তমানে বিমানবন্দর, কফি শপ, হোটেলসহ নানা জনগুরুত্বপূর্ণ এলাকায় পাওয়া যায় তারহীন নেটওয়ার্কের সুবিধা৷ এমন নেটওয়ার্কের পরিধিও দিনে দিনে বাড়ছে৷ তাই, সেখানকার নিরাপত্তা ব্যবস্থার এই ত্রুটি ধরিয়ে দিয়ে বেশ আলোচনায় আছেন এরিক বাটলার৷ মার্কিন মুল্লুকের সিয়াটলে অবস্থানরত এই তরুণকে কেউ বলছেন কম্পিউটার প্রোগ্রামার বা কারো মতে হ্যাকার তিনি৷

তবে, এরিক অন্য হ্যাকারদের মতো কোন হুমকিধামকি দিচ্ছেন না৷ তাঁর কথায়, ওয়েবসাইটগুলোর উচিত ব্যবহারকারীর নিরাপত্তা নিশ্চিত করা৷ কিন্তু তারা সেটা করছে না৷ এই বিষয়টিকেই প্রমাণ করতে এরিক তৈরি করেন ফায়ারশিপ৷ ২৪ ঘণ্টায় নাকি এই প্লাগইন ডাউনলোড হয়েছে ১ লাখ ২৯ হাজার বার৷

যাই হোক, এরিকের এই ক্ষুদ্র প্রোগ্রাম ক্ষতিকর কাজেও ব্যবহার হতে পারে৷ তাই, তারহীন নেটওয়ার্কে নিজেকে নিরাপদ রাখার এক উপায়ও বাতলেছেন তিনি৷ এজন্য ব্যবহার করতে হবে আরেকটি ফায়ারফক্স প্লাগইন৷ নাম, এইচটিটিপিএস-এভরিহয়্যার৷ এই প্লাগইনটির কাজ হচ্ছে তথ্য ফাঁসের হাত থেকে ব্যবহারকারীকে রক্ষা করা৷ বিশেষ করে ফেসবুক, টুইটার, ওয়ার্ডপ্রেস ব্যবহারকারীরা এই প্লাগইন দিয়ে নিজেকে সুরক্ষিত রাখতে পারে৷

এদিকে, তারহীন নেটওয়ার্কে নিরাপত্তার এমন বেহাল দশা দেখে আপাতত চুপ ফেসবুক৷ একাধিক বার্তাসংস্থা চেষ্টা করেও সংস্থাটির কাছ থেকে এই বিষয়ে কোন মন্তব্য পায়নি৷

প্রতিবেদন: আরাফাতুল ইসলাম

সম্পাদনা: হোসাইন আব্দুল হাই

নির্বাচিত প্রতিবেদন