1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

সমাজ সংস্কৃতি

অন্ধ্র প্রদেশে ক্ষুদ্রঋণ প্রকল্পের ব্যর্থতা

দারিদ্র্য দূরীকরণে ক্ষুদ্রঋণ একটি বিপ্লব বলা যেতে পারে৷ কিন্তু পৃথিবীর সবদেশেই কিন্তু এই প্রকল্প সফল হচ্ছে না৷ কোথাও কোথাও এই প্রকল্প মুখ থুবড়ে পড়েছে৷

default

ক্ষুদ্রঋণ প্রকল্প সব জায়গায় সফল হচ্ছে না

ক্ষুদ্রঋণ প্রকল্প, ক্ষুদ্রঋণ নিয়ে ব্যবসা করা বাংলাদেশে বেশ সফল হয়েছে৷ ক্ষুদ্রঋণ প্রকল্পের বাস্তবায়ন এবং প্রসারের কারণে মুহাম্মদ ইউনূস নোবেল শান্তি পুরস্কারও পেয়েছেন৷ নব্বই-এর দশকে ক্ষুদ্রঋণ ভারতীয় উপমহাদেশে নিয়ে এসেছে এক ধরণের বিপ্লব৷ পকেট-সাইজ ঋণ দিয়ে দেশ থেকে দারিদ্র্য দূরীকরণের চেষ্টা করা হয়েছে৷ তবে ইদানিং ক্ষুদ্রঋণ প্রকল্পগুলো নিয়ে চলছে জল্পনা-কল্পনা৷ কেলেঙ্কারি আর বিতর্কের ঝড় উঠেছে ক্ষুদ্রঋণ প্রকল্প নিয়ে৷ বলা হচ্ছে ঋণের আড়ালে লুকিয়ে আছে চড়া সুদ৷ অর্থাৎ বড় আকারের সুদ গ্রহণ করা হচ্ছে ঋণগ্রহীতাদের কাছ থেকে৷ আর এই সুদ বা ঋণ কোনটাই ঠিকমত পরিশোধ করতে পারছে না অন্ধ্র প্রদেশের অনেক গরীব কৃষক৷ ফলে তারা বেছে নিয়েছে আত্মহত্যার পথ৷ প্রায় ৮৮ জন কৃষক এ পর্যন্ত আত্মহত্যা করেছে – এর মূল কারণ হল তারা কেউই ঠিকমত সুদ দিতে পারেনি, ঋণ ফেরৎ দেওয়া তো দূরের কথা৷ আর ক্ষুদ্রঋণ প্রকল্পের কর্মকর্তারা সারাক্ষণই এদের বাড়িতে হামলা করতো সুদ আদায়ের জন্য৷

ব্যর্থ বিমলা রাজন

সাত বছর আগে বিমলা রাজন ভেবেছিলেন ক্ষুদ্রঋণ নিয়ে তিনি আর্থিক সমস্যার হাত থেকে পরিবারকে রক্ষা করবেন৷

Nobelpreisträger Muhammad Yunus bei der Preisverleihung

ক্ষুদ্রঋণ প্রকল্পের কারণে নোবেল পেয়েছেন মুহাম্মদ ইউনূস

তিনি চেন্নাইয়ের একটি বস্তিতে বাস করেন৷ স্থানীয় একটি সমবায় সমিতির সদস্যা সে৷ সেই সমিতির সাহায্যে তিনি ৮৫ ইউরো অর্থাৎ পাঁচ হাজার একশো রুপি ঋণ নেন একটি ক্ষুদ্রঋণ প্রদানকারী সংস্থার কাছ থেকে৷ যেহেতু ব্যবসার জন্য বিমলা ঋণ নিয়েছিলেন তাই তিনি সব্জি ব্যবসার কথা বলেন৷ তা না করে পুরো টাকা তিনি খরচ করেন পরিবারের বিভিন্ন কাজে৷ প্রতি সপ্তাহে ঋণের কিস্তি শোধ করছেন তাঁর স্বামী৷ এরপর বিমলা আরো কিছু ঋণ নেন৷ ৮৫ ইউরো এবং পরের বার ৩৪৫ ইউরোর ঋণ৷ এর পাশাপাশি ব্যাঙ্ক থেকে নেন ২৬০ ইউরোর আরেকটি ঋণ৷ বিমলা রাজন বললেন, ‘‘প্রতিমাসে এতগুলো ঋণের কিস্তি পরিশোধ করতে আমাদের সত্যিই ভীষণ সমস্যা হচ্ছে৷ আমি ক্ষুদ্রঋণ প্রদানকারী সংস্থা থেকে আরেকটি ঋণ নিয়েছি আগের ঋণটি শোধ করার জন্য৷ এখন সবগুলো ঋণের বোঝা সত্যিই অনেক বেশি মনে হচ্ছে৷''

বিমলার বয়স ৫৫৷ সব মিলে তাঁর কাঁধে ৭০০ ইউরোর ঋণের একট বিশাল বোঝা৷ অথচ গোটা পরিবার মাসে আয় করে মাত্র একশো ইউরো৷ শেষ পর্যন্ত তিনি সব্জির বাগানের দিকে ঝুঁকে পড়েন৷ কিন্তু সেখান থেকে লোকসান ছাড়া আর কিছুই আসেনি৷

এ ধরণের ঘটনায় বিমলা একা নয়৷ ভারতে হাজার হাজার মহিলা রয়েছেন যারা এ ধরণের সমস্যায় ভুগছেন৷ ক্ষুদ্রঋণ সংস্থাগুলো ডানা মেলে রয়েছে গোটা দেশে৷ যে কোন অঙ্কের ঋণ দিতে তারা প্রস্তুত৷ যেহেতু খুব সহজেই এই ঋণ পাওয়া সম্ভব তাই অনেকেই ঝুঁকে পড়ে ঋণ নেওয়ার জন্য৷

India, Silk worker weaving a sari, a dress worn by women in India, bangalore

কিন্তু ভারতের অন্ধ্র প্রদেশে ক্ষুদ্রঋণ সফল নয়

এই সংস্থাগুলো দরিদ্র মানুষের দ্বারে দ্বারে যায় – ঋণের বিভিন্ন সুযোগ-সুবিধার কথা জানাতে৷ এত সহজে এত টাকা একসঙ্গে পাওয়া যাবে? – এই লোভে তখন অনেকেই এগিয়ে যায় ঋণ নিতে৷ সবাই মনে করে হাতে টাকা আছে যে কোন ব্যবসা শুরু করা যাবে৷ বিমলা যেখানে থাকে সেখানে আরো অনেক মহিলা জানিয়েছে তাদের ঋণ নিতে সবসময়ই উৎসাহিত করে সংস্থাগুলো৷

প্রয়োজন শিক্ষার, প্রয়োজন প্রশিক্ষণের

অথচ ক্ষুদ্র ঋণের আগে একসময় ‘সেল্ফ-হেল্প' গ্রুপ মডেলে মহিলাদের ঋণ দেওয়া হত৷ তবে তা কখনো একজনকে দেওয়া হত না৷ কয়েকজনকে একসঙ্গে৷ তাই সবারই দায়িত্ব থাকে ঋণ ফেরৎ দেওয়ার৷ ঋণ দেওয়ারও নানা শর্ত পূরণ করতে হতো ঋণগ্রহীতাদের৷

কীভাবে ঋণ দেওয়া হয় বা ঋণের টাকা দিয়ে কী করা হয় – তা জানার কোন উপায় থাকে না৷ চেন্নাইয়ের ‘রাং দে' দাতব্য ক্ষুদ্রঋণ সংস্থায় কাজ করছেন স্মিতা রাম৷ তিনি জানান, ‘‘যেহেতু এই শর্তগুলো দেখে ঋণ দেওয়া অনেক সময়সাপেক্ষ তাই বেশির ভাগ সংস্থা এ ধরণের ঝামেলায় যেতে চাইছে না৷ একজনকে দ্রুত ঋণ দিয়ে সংস্থাগুলো চলে যায় অন্যজনের কাছে৷ আমার মনে হয় অনেক ফাঁক রয়ে গেছে এ ধরণের কাজে৷ আমাদের ঋণগ্রহীতাদের সঙ্গে কথা বলা উচিত৷ ঋণ কী এবং কেন – তা বোঝানো উচিত৷ ব্যবসা কীভাবে শুরু করা যায়, কোন ব্যবসায় সাফল্য আসবে এসব বিষয়ে জ্ঞান দেওয়া উচিত৷''

অন্ধ্র প্রদেশে ক্ষুদ্রঋণ প্রদানকারী সংস্থার সংখ্যা সবচেয়ে বেশি৷ ঋণের দুষ্টচক্র থেকে কেউই বের হয়ে আসতে পারছে না সেখানে৷ দ্বারে দ্বারে যেয়ে ঋণ দেওয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করেছে রাজ্য সরকার৷ অন্যদিকে রাজনীতিকরা প্রকাশ্যেই বলছে, ঋণের অধিকার সবার আছে৷ ফেরৎ দেওয়ার প্রয়োজন নেই৷ এ ধরণের প্রচারণার সমালোচনা করে মাদুরা ক্ষুদ্রঋণ সংস্থার তারা থিয়াগারাজন জানান, ‘‘আমরা অস্বীকার করছি না যে অসৎ উদ্দেশ্যে ঋণ দেওয়া হচ্ছে৷ তাই বলে সবাই যে তা'ই করছে তা কিন্তু নয়৷ ঋণ ফেরৎ দেওয়ার প্রয়োজন নেই – এই ধরণের চিন্তা-ভাবনা ক্ষুদ্রঋণের পুরো ভিত্তিকেই ধ্বংস করবে৷ যদি তা চলতে থাকে তাহলে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের হাতে কোন টাকা-পয়সা থাকবে না৷ আমার মনে হয় যে বা যারা ঋণ দেয় তাদেরই উচিত দেখে শুনে ঋণ দেওয়া৷''

প্রতিবেদন: মারিনা জোয়ারদার

সম্পাদনা: অরুণ শঙ্কর চৌধুরী