1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

অনলাইন ভোটে জয়ী শিক্ষক ডটকম, শৈলী ও সাইফ সামির

ডয়চে ভেলের সেরা অনলাইন অ্যাক্টিভিজম অ্যাওয়ার্ড বা দ্য বব্স-এর একটি বিভাগে জুরি অ্যাওয়ার্ড অর্জন ছাড়াও আরো তিনটি বিভাগে ‘ইউজার প্রাইজ’ জয় করেছে বাংলা ভাষা৷ সেরা উদ্ভাবন বিভাগে ইউজার প্রাইজ জিতেছে শিক্ষক ডটকম৷

ডয়চে ভেলের সেরা অনলাইন অ্যাক্টিভিজম অ্যাওয়ার্ড অথবা দ্য বব্স-এর বিজয়ী নির্ধারণের ক্ষেত্রে দুটি পন্থা বেছে নেওয়া হয়৷ ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের ভোটের ভিত্তিতে নির্ধারিত হন ইউজার প্রাইজ বিজয়ীরা৷ অন্যদিকে, দ্য বব্স-এর ১৫ সদস্যের আন্তর্জাতিক জুরিমণ্ডলী বার্লিনে বৈঠকের মাধ্যমে নির্ধারণ করেন ‘জুরি অ্যাওয়ার্ড’ বিজয়ীদের৷

দ্য বব্স-এর এই প্রতিযোগিতায় অংশ নেয় ১৪টি ভাষা৷ ছয়টি আন্তর্জাতিক মিশ্র বিভাগে এসব ভাষার বিভিন্ন ব্লগ এবং সামাজিক উদ্যোগ প্রতিযোগিতায় অংশ পায়৷ চলতি বছর ‘গ্লোবাল মিডিয়া ফোরাম’ বিভাগে ‘জুরি অ্যাওয়ার্ড’ জয় করেছে বাংলাদেশের তথ্যকল্যাণী প্রকল্প৷ পাশাপাশি সেরা উদ্ভাবন বিভাগে ইউজার প্রাইজ জয় করেছে শিক্ষক ডটকম৷ এছাড়া সেরা বাংলা ব্লগ বিভাগে বিজয়ী শৈলী এবং ‘বাংলা: সেরা অনুসরণযোগ্য’ বিভাগে বিজয়ী সাইফ সামির৷

‘নিবন্ধিত শিক্ষার্থীর সংখ্যাই ২০ হাজারের বেশি’

মূলত বাংলাদেশ এবং ভারতের প্রত্যন্ত অঞ্চলে বসবাসরত সুবিধাবঞ্চিত শিশুদের জন্য বাংলায় অনলাইনভিত্তিক শিক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা করছে শিক্ষক ডট কম৷ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে অবস্থানরত বাঙালি শিক্ষাবিদরা এই প্ল্যাটফর্মটির পেছনে সময় দিচ্ছেন৷ এই সাইটটি গড়ে তুলেছেন যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী বাংলাদেশি তথ্যপ্রযুক্তিবিদ রাগিব হাসান৷ দ্য বব্স ইউজার প্রাইজ জয়ের প্রতিক্রিয়ায় রাগিব হাসান বলেছেন, ‘‘আসলে খুব ভালো লাগছে৷ শিক্ষক ডটকম-এর পেছনে প্রচুর সময় দেয়া স্বেচ্ছাসেবী শিক্ষকদের পরিশ্রমের এই স্বীকৃতি তাদের আরো অনুপ্রেরণা দেবে বাংলায় জ্ঞানের আলো সবার কাছে পৌঁছে দিতে৷ এছাড়া, শিক্ষক ডটকমের কথা আরো অনেক মানুষ জানবে, আরো ব্যাপক হবে এর পরিধি৷’’

এখানে লেখা প্রয়োজন, ডয়চে ভেলের প্রতিযোগিতা চলাকালে শিক্ষক ডটকমের পক্ষে ভোট পড়েছে ৫৬ শতাংশ৷ বিশ্বের বাকি ১৩টি ভাষার প্রতিদ্বন্দ্বীকে প্রতিযোগিতার শুরুতেই পেছনে ফেলে দেয় শিক্ষক ডটকম৷ অর্থাৎ, ভোটের এই ফলাফল থেকেই সাইটটির জনপ্রিয়তা সহজে অনুমেয়৷ রাগিব হাসান এই বিষয়ে বলেন, ‘‘শিক্ষক ডটকমের কর্মকাণ্ড আসলে ব্যাপক, যা অভূতপূর্ব সাড়া ফেলেছে বাংলা ভাষাভাষী শিক্ষার্থীদের মধ্যে৷ আমাদের কোর্সগুলোতে ইতিমধ্যে নিবন্ধিত শিক্ষার্থীর সংখ্যাই ২০ হাজারের বেশি৷ অবশ্য কোর্সে অংশ নিতে নিবন্ধন বাধ্যতামূলক না, তাই প্রকৃত শিক্ষার্থীর সংখ্যা আরো অনেক বেশি৷’’

Ragib Hasan

শিক্ষক ডটকম এর রাগিব হাসান

বাংলাদেশের শিক্ষাব্যবস্থায় শিক্ষক ডটকম-এর প্রভাব সম্পর্কে একটি উদাহরণও দিলেন রাগিব হাসান৷ ডয়চে ভেলেকে দেওয়া একান্ত সাক্ষাৎকারে তিনি বলেন, ‘‘বাংলাদেশের এক খুবই প্রত্যন্ত অঞ্চলের একটি স্কুলের প্রধান শিক্ষক আমাকে ই-মেলে জানিয়েছেন যে, তিনি তাঁর স্কুলের দরিদ্র ও সুবিধাবঞ্চিত শিক্ষার্থীদের জন্য শিক্ষক ডটকম-এর ভিডিওগুলোকে কাজে লাগাতে চান৷ তাঁর মতে, আমাদের এই শিক্ষাপদ্ধতিটি গ্রাম ও শহরের, ধনী ও দরিদ্র শিক্ষার্থীদের মধ্যে বৈষম্য ঘুঁচিয়ে আনতে খুবই কার্যকর ভূমিকা রাখবে৷’’

‘বিষয় বৈচিত্রে যথেষ্ট পার্থক্য দেখতে পাই’

সেরা বাংলা ব্লগ বিভাগে ইউজার প্রাইজ জয়ের প্রতিক্রিয়ায় শৈলী ব্লগের কর্ণধার রিপন কুমার দে ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন, ‘‘এটা শুধু আমি না, সকল শৈলার এবং শৈলীর পাঠকদের জন্য খুব আনন্দের খবর৷ শৈলার এবং পাঠকদের ভালোবাসা ছাড়া এই স্বীকৃতি কোনোভাবেই আসত না৷ তাই তাদের সকলের প্রতি আমার কৃতজ্ঞতা৷ সকলের ভালোবাসা নিয়ে শৈলী আরো অনেকদূর এগিয়ে যাবে এটাই আমার প্রত্যাশা৷’’

সেরা বাংলা ব্লগ বিভাগে শৈলীর প্রতিদ্বন্দ্বিরাও ছিল সব বাংলা ভাষার৷ তাসত্ত্বেও তাদের পক্ষে ভোট পড়েছে ৪৫ শতাংশ৷ বাংলা ভাষার ব্লগের সঙ্গে বিশ্বের অন্যান্য ভাষার ব্লগের পার্থক্য সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে রিপন দে বলেন, ‘‘বাংলা ভাষার সঙ্গে অন্যান্য ভাষার বিষয় উপস্হাপনার দিক থেকে আমি তেমন কোনো পার্থক্য খুঁজে পাই না৷ তবে বিষয় বৈচিত্রে যথেষ্ট পার্থক্য দেখতে পাই৷ যেহেতু বিষয়বস্তু নির্দিষ্ট অঞ্চলের ভাষাভাষীর মানুষের প্রয়োজনীয়তার উপর নির্ভর করে গড়ে উঠে, তাই পার্থক্য থাকাটাই সমীচীন৷’’

তবে দ্য বব্স-এর বাংলা ভাষার বিচারক ড. শহীদুল আলম এক্ষেত্রে খানিকটা ভিন্নমত পোষণ করেন৷ ডয়চে ভেলেকে তিনি বলেন, ‘‘বিষয়ের দিক থেকে না হলেও প্রযুক্তিগত দিক থেকে আমরা পিছিয়ে আছি৷ আমার মনে হয় ব্লগের ডিজাইনের ক্ষেত্রে, ছবি ব্যবহারের ক্ষেত্রে, ভিডিও ব্যবহারের ক্ষেত্রে আমরা বেশ কিছুটা পিছিয়ে আছি৷ তবে আমি আশা করি, সামনে ব্লগাররা সেগুলোকে গুরুত্ব দেবেন৷’’

Infolady Projekt gewinnt Global Media Forum Auszeichnung

‘জুরি অ্যাওয়ার্ড’ জয় করেছে বাংলাদেশের তথ্যকল্যাণী প্রকল্প

‘দেশের জন্য চরম লজ্জাজনক বিষয়’

দ্য বব্স প্রতিযোগিতায় এবছর নতুন একটি বিভাগ যোগ করা হয়৷ ‘বাংলা: সেরা অনুসরণযোগ্য’ শিরোনামের এই বিভাগে ইউজার প্রাইজ জয়ী সাইফ সামির ডয়চে ভেলেকে বলেন, ‘‘পৃথিবীর বিভিন্ন দেশে সরকার কর্তৃক লেখক-ব্লগার-সাংবাদিকদের ওপর যে দমন-নিপীড়ন চালানো হচ্ছে ডয়চে ভেলের মাধ্যমে আমি তার প্রতিবাদ জানাচ্ছি৷ একজন লেখককে তাঁর ব্যক্তিগত মত প্রকাশের জন্য আটক করা হবে, রিমান্ডে নেয়া হবে – এটা কি ধরণের কথা? যেখানে বড় বড় চোর-ডাকাত-দুর্নীতিবাজরা পাজেরো গাড়িতে ঘুরে বেড়ায় সেখানে লেখকদেরকে রিমান্ডে নেয়াটা হাস্যকর৷’’

বাংলাদেশে সাম্প্রতিক সময়ে চারজন ব্লগারকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে৷ আরো কয়েকজন ব্লগারকে শীঘ্রই গ্রেপ্তার করা হতে পারে বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী৷ এরকম অবস্থায় একজন ব্লগার হিসেবে স্বস্তিতে নেই সামির৷ প্রতিযোগিতায় ৫৭ শতাংশ ভোট পাওয়া এই ব্লগার বলেন, ‘‘যে দেশে চোর-ডাকাত-দুর্নীতিবাজরা দিনের আলোয় ঘুরে বেড়ায়, সে দেশে আজকাল লেখক-ব্লগার-সাংবাদিকরা শান্তিতে ঘুমাতে পারেন না৷এটা একটি দেশের জন্য চরম লজ্জাজনক বিষয়৷’’

উল্লেখ্য, দ্য বব্স প্রতিযোগিতায় জুরি অ্যাওয়ার্ড বিজয়ীদের হাতে পুরস্কার তুলে দেওয়া হবে আগামী ১৮ই জুন৷ জার্মানির বন শহরে অনুষ্ঠিতব্য গ্লোবাল মিডিয়া ফোরামে বাংলা ভাষার পক্ষে পুরস্কার গ্রহণ করবেন গাইবান্ধা জেলার প্রত্যন্ত অঞ্চলের এক তথ্যকল্যাণী৷

নির্বাচিত প্রতিবেদন