1. Inhalt
  2. Navigation
  3. Weitere Inhalte
  4. Metanavigation
  5. Suche
  6. Choose from 30 Languages

বিশ্ব

অত্যধিক খাটুনির ফলে মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে জাপানে

সমস্যাটির নাম ‘কারোশি', মাত্রাধিক চাপ থেকে শ্রমিক বা কর্মচারীর মৃত্যু৷ প্রথাগতভাবে পয়লা এপ্রিল তারিখে যে সব তরুণ-তরুণী জাপানে ওয়ার্কফোর্সে যোগদান করেছেন, তাদের ঠিক সেই চাপ সহ্য করতে হতে পারে৷

১লা এপ্রিল সারা জাপান জুড়ে ছোট-বড় কোম্পানির প্রায় ন'লাখ দশ হাজার নতুন শ্রমিক-কর্মচারীকে গালভরা বক্তৃতা দিয়ে স্বাগত জানান প্রেসিডেন্ট ও সিইও-রা৷ বলেন, এই কোম্পানি তাদের নতুন পরিবার৷ মিনা মোরি যেমন শুনেছিলেন ২০০৮ সালে, ওয়াতামি কোম্পানিতে যোগ দেবার সময়৷ এই কোম্পানি এক পর্যায় ‘ইজাকায়া' বার চালায়৷ তার ঠিক দু'মাস পরেই ২৬ বছর বয়সি তরুণী মিনা আত্মহত্যা করেন৷

ওয়াতামি কোম্পানি মিনার বাবা-মাকে এক লাখ ইউরো ক্ষতিপূরণ দিতে রাজি হয় সবে ২০১৫ সালের ডিসেম্বর মাসে৷ কোম্পানির প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন জাপান সংসদের উচ্চকক্ষের সদস্য মিকি ওয়াতানাবে৷

আদালত ওয়াতামি কোম্পানিকে তাদের ওয়েবসাইটে মিনার বাবা-মার কাছে ক্ষমাপ্রার্থনা করতে বলে৷ আত্মহত্যা করার আগে মিনা লিখেছিলেন, ‘‘আমার সারা শরীরে ব্যথা করছে৷ আমি পুরোপুরি শ্রান্ত৷ আমার যেন কোনো আবেগ-অনুভূতি অবশিষ্ট নেই৷ হাঁটতে-চলতে কষ্ট৷ কেউ আমাকে সাহায্য করুন৷'

‘কারোশি'-র ঘটনা বেড়েই চলেছে

কারোশি কথাটার মানে অত্যধিক খাটুনির ফলে মৃত্যু৷ কারোশি নিয়ে আদালতে মামলার সংখ্যা বেড়ে দাঁড়িয়েছে বছরে প্রায় দেড় হাজারে ৷ এর একটা কারণ নাকি স্বাস্থ্য সেবা ও অন্যান্য সমাজকল্যাণমূলক সেবা, এছাড়া বিশেষ করে গৃহনির্মাণ শিল্পে শ্রমিকের অভাব৷ তবে অপরাপর বিশেষজ্ঞের মতে, কারোশির মূল কারণ হলো জাপানি সমাজে অতিমাত্রায় প্রতিযোগিতার মনোভাব৷

নব্বই-এর দশকের পর থেকে জাপানের অর্থনীতিতে যে মন্থরতা দেখা দিয়েছে, তার ফলে বহু কোম্পানি স্থায়ি শ্রমিক-কর্মচারীদের বদলে অস্থায়ি কর্মীদের সাময়িক নিয়োগ দিচ্ছে৷ ফলে যাদের স্থায়ি কনট্র্যাক্ট আছে, তারা সেই স্ট্যাটাস বজায় রাখার জন্য আরো ওভারটাইম করছে৷ শুধু ওভারটাইমই বাড়েনি, বেড়েছে বিনা পারিশ্রমিকের ওভারটাইম; সাধারণভাবে কাজের সময় বেড়েছে, ছুটি কমেছে, অন্যান্য সুযোগসুবিধা কমেছে৷ জাপানে আজ দিনে বারো ঘণ্টা কাজ করাটাকে স্বাভাবিক বলে মনে করা হয়৷

আইন আছে, কিন্তু তা-তে ধার নেই

জাপানে যে শ্রমিক-কর্মচারী সংক্রান্ত আইন নেই, এমন নয়৷ কিন্তু কোম্পানিরা শ্রমিক-কর্মচারী ও শ্রমিক সংগঠনগুলির সঙ্গে আলাদা করে চুক্তি সই করিয়ে নিয়ে আইনের বিপত্তি এড়িয়ে যায়৷ সেই সঙ্গে যুক্ত হয়েছে কর্পোরেট কালচার, যার অর্থ, সারাদিনের কাজ সারার পরেও অফিসের ঊর্ধ্বতন কর্মচারীর সঙ্গে পানশালায় গিয়ে সারাটা সন্ধ্যা পান করতে হবে৷

আর এক বিশেষজ্ঞের মতে, জাপানের ওয়ার্কফোর্সের বয়স ক্রমেই বাড়ছে, সে তুলনায় নবীনদের বিশেষ নেওয়া হচ্ছে না৷ কাজেই এককালের নবীনরা আর আগের মতো কাজও কর্পোরেট কালচারের যৌথ চাপ সহ্য করতে পারছেন না, হাই ব্লাড প্রেসার বা হার্ট অ্যাটাকে মারা যাচ্ছেন৷

বাড়ছে মানসিক রোগ, যেমন ডিপ্রেসন, অর্থাৎ মানসিক বিষাদ৷ চাকরি নিয়ে দুশ্চিন্তা ও কাজের চাপের ফলে তরুণ প্রজন্মের শ্রমিক-কর্মচারীরা দেরিতে বিয়ে করছেন৷ কাজেই আর একটি সমস্যা ঘনাচ্ছে: জনসংখ্যা হ্রাসের সমস্যা৷ কিন্তু তার সমাধান?

নির্বাচিত প্রতিবেদন